মঙ্গলবার , ১১ আগস্ট ২০২০
সর্বশেষ সংবাদ
Home » Sport » বাংলাদেশ দলের তরুণ লেগ স্পিনার আমিনুল ইসলাম বিপ্লব

বাংলাদেশ দলের তরুণ লেগ স্পিনার আমিনুল ইসলাম বিপ্লব

B797FBD8-F094-4CEC-A5DD-4EB65027FAC7

 

অভাবের সংসার,নুন আন্তে পান্তা ফুরোয় শরিয়তপুরের আব্দুল কুদ্দুসের। কথা হচ্ছে বাংলাদেশ দলের তরুণ লেগ স্পিনার আমিনুল ইসলাম বিপ্লবের।
বিপ্লবের বাবা আব্দুল কুদ্দুস পেশায় একজন সিএনজি অটোরিকশার চালক। ক্রিকেটের প্রতি ছেলের প্রবল আগ্রহ দেখে এবং তামিম,সাকিবদের খেলা দেখে ইচ্ছা ছিল ছেলেকে ক্রিকেটার বানাবেন। সেই লক্ষ্যে ছেলেকে ভর্তি করিয়ে দেন ওয়াহিদুল গনির একাডেমিতে। ২০০৮ সালে পল্লীমা ক্রিকেট একাডেমিতে কোচ মোহাম্মদ আশরাফুলের তত্ত্বাবধানে থেকে ক্রিকেটের হাতে খড়ি। এখানেই ক্রিকেট দীক্ষা নেওয়া শুরু হয় তার । কোচ ওয়াহিদুল গণি বিপ্লবের কঠোর পরিশ্রমী মানসিকতা দেখে অবাক হন। অতঃপর ২০১২ সালে বিকেএসপিতে ভর্তি হওয়ার পর ধীরে ধীরে বয়স ভিত্তিক ক্রিকেট খেলে সুযোগ পান বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ জাতীয় দলে।

খেলোয়াড়ি জীবন :
২০১৫ সালের অক্টোবরে ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন অব বেঙ্গলের (সিবিএ) বিপক্ষে অনূর্ধ্ব-১৭ দলের বিপক্ষে টানা দুটি সেঞ্চুরি করেছিলেন ।এরপর অনূর্ধ্ব-১৮ ক্রিকেটে ৭ ম্যাচে ৫৫০ রান করার পাশাপাশি ১৬ টি উইকেট নিয়েছি। বিপ্লব কখনো প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট খেলেননি। অভিজ্ঞতা বলতে ১৯টি লিস্ট ‘এ’ ম্যাচ আর দুটি টি-টোয়েন্টি। বয়সভিত্তিক ক্রিকেটে বিপ্লব খেলেছেন টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান হিসেবে। সেখানে ধারাবাহিক ব্যাটিংয়ে খুব যে সবাইকে মুগ্ধ করেছেন, সেটিও নয়। আমিনুলের সেরা সিরিজ কেটেছে ২০১৫ সালের অক্টোবরে ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন অব বেঙ্গলের (সিবিএ) বিপক্ষে। বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৭ দলের হয়ে চার ম্যাচে সেঞ্চুরি করেছিলেন ২টি (তিন দিনের ম্যাচ ছিল)।

ব্যাটিংয়ে সেই দ্যুতি পরে ধারাবাহিক ছড়াতে পারেননি। তবে মাস তিনেক আগে প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন যখন বললেন, ‘বিপ্লবের (আমিনুল) লেগ স্পিনটা অসাধারণ’, শুনে অবাকই হতে হলো।

আমিনুলের যে লেগ স্পিন নিয়ে প্রধান নির্বাচক এত মুগ্ধ, প্রতিযোগিতামূলক ক্রিকেটে তাঁর সাফল্য নেই বললেই চলে। টি-টোয়েন্টিতে কখনো বোলিংই করেননি। ১৯টি লিস্ট ‘এ’ ম্যাচে উইকেট মাত্র তিনটি। তবুও তাঁকে কেন সুযোগ দেওয়া? গত কদিনে প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গো নাকি বারবার নির্বাচকদের কাছে একজন লেগ স্পিনার চেয়ে ‘চাহিদাপত্র’ পাঠিয়েছিলেন।

আগে থেকেই এ তরুণে মুগ্ধ মিনহাজুলের মনে হয়েছে, ছেলেটার ভবিষ্যত ভালো। তাঁকে একটা সুযোগ দেওয়া যায়। প্রধান নির্বাচক অবশ্য তাঁকে শুধুই লেগ স্পিনার নয়, দেখতে চান বোলিং অলরাউন্ডার হিসেবে, ‘বাংলাদেশ দল যখন অনুশীলনে ব্যস্ত, ওকে তখনই তাকে এইচপিতে তৈরি করতে খেলানো হলো ।

মুলত বিপ্লবের আগমন আফগানিস্তানের বিপক্ষে প্রস্তুতির জন্য নেট বোলার হিসেব।জহুর আহেমেদের নেটে অনেকক্ষণ বিপ্লবকে পরখ করে দেখেছেন কোচ ডমিঙ্গো। তখন শরীয়তপুর থেকে উঠে আসা ১৯ বছর বয়সী লেগ স্পিনার এত বড় প্ল্যাটফর্মে পা রেখেছেন, সে স্নায়ুচাপেই কিনা একটা ভালো বোলিং করেন তো, পরেরটা হয়ে যায় আলগা! কখনো ভালো জায়গায় ফেলছেন তো আরেকটা হয়ে যাচ্ছে লেগ স্টাম্পের অনেক বাইরের ফুল টস। কখনো কখনো অবশ্য রোমাঞ্চ ছড়ানো গুগলি মেরে কঠিন পরীক্ষাও নিয়েছিলেন ব্যাটসম্যানদের। সব মিলিয়ে দীর্ঘদিন ট্যালেন্ট বের করার জন্য অভিজ্ঞ এই কোচ তাকে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে খেলার জন্য নির্বাচিত করলেন।

আরও দেখুন

লন্ডনে অবৈধ স্ট্রিট পার্টিতে সংঘর্ষে ২২ পুলিশ আহত

বাংলা সংলাপ রিপোর্টঃলন্ডনে পুলিশ বলেছে যে রাজধানীর দক্ষিণে একটি অবৈধ স্ট্রিট পার্টি ভাঙার চেষ্টা করার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: