মঙ্গলবার , ১১ আগস্ট ২০২০
সর্বশেষ সংবাদ
Home » Covid-19 » বিশেষজ্ঞদের আশঙ্কা সত্যি, “সিলেটের ভয়ঙ্কর পরিস্থিতি এখন ভয়ঙ্কর!”

বিশেষজ্ঞদের আশঙ্কা সত্যি, “সিলেটের ভয়ঙ্কর পরিস্থিতি এখন ভয়ঙ্কর!”

ডেস্ক রিপোর্ট:: ঈদের আগে সিলেটসহ সারা দেশে ‘সীমিত পরিসরে’ মার্কেট, দোকানপাট ও শপিং মল খুলে দেয় সরকার। এই সুযোগে হু হু করে প্রাণঘাতি করোনাভাইরাস বিস্তারের মুহুর্তেও নগরসহ সিলেটের সর্বত্রই দোকান-মার্কেটে প্রচণ্ড ভিড় করে ঈদের কেনাকাটা করেন লোকজন। এসময় মানুষের মাঝে শারীরিক দূরেত্বের কোনো বালাই ছিলো না এবং স্বাস্থ্যবিধির তোয়াক্কা করেনি কেউ।

এমন পরিস্থিতির শুরু থেকেই স্বাস্থ্যবিভাগ সংশ্লিষ্ট এবং বিশেষজ্ঞদের মন্তব্য ছিলো- ঈদ পরবর্তী সিলেটের জন্য এক ‘ভয়ঙ্কর সময়’ অপেক্ষা করছে। আর বিশেষজ্ঞদের সে আশঙ্কাকে সত্যি করে এখন প্রতিদিনই সিলেট জেলায় প্রাণনাশি এ ভাইরাসে আক্রান্ত হচ্ছেন প্রায় অর্ধশত মানুষ। এর মধ্যে রয়েছেন নারী ও শিশু থেকে শুরু করে চাকরিজীবি, চিকিৎসক, নার্স, সরকারি কর্মকর্তা, রাজনীতিবিদ, জননেতা ও দিনমজুরসহ নানা শ্রেণি এবং পেশার মানুষ।

বিভাগীয় পরিচালক (স্বাস্থ্য) কার্যালয় সিলেট’র পরিসংখ্যান সূত্রে জানা গেছে- সিলেট জেলায় গত ২৮ মে ৩৯ জন, ২৯ মে ৪৫ জন, ৩০ মে ৩১ জন, ৩১ মে ৭৩ জন, ১ জুন ২১ জন, ২ জুন ৪৬, ৩ জুন ২৫ জন এবং আজ ৪ জুন সকাল ৮টা পর্যন্ত ৫৩ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এই ৭ দিনে সিলেট জেলায় গড়ে ৪৭ জনের অধিক মানুষ প্রাণনাশী এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।

এছাড়াও গত ৭ দিনে সিলেট জেলায় করোনা কেড়ে নিয়েছে ৯ জনের প্রাণ। গত ২৮ মে পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা ছিলো ১১। তারপরে ২৯ মে ১ জন, ৩০ মে ১ জন, ১ জুন ১ জন, ২ জুন ৩ জন, ৩ জুন ১ জন এবং আজ ৪ জুন সকাল ৮টা পর্যন্ত ২ জন। এ হিসেবে গড়ে প্রতিদিন সিলেটে একজনের অধিক মানুষ মারা যাচ্ছেন করোনা ভাইরাসে।

এদিকে, সিলেটে এমন ‘ভয়ঙ্কর সময়’ উপস্থিত হওয়ার জন্য সদ্য বিদায়ী ঈদের আগের দিনগুলোতে ভিড় করে কেনাকাটা করাকেই দায়ী করছেন সংশ্লিষ্টরা।  

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সিলেটের সহকারী পরিচালক ডা. আনিসুর রহমান এ বিষয়ে আজ বৃহস্পতিবার (৪ জুন) সিলেটভিউ-কে বলেন, সিলেট বিভাগে প্রথমদিকে কোভিট-১৯ ভাইরাসটি ছড়ানোর অন্যতম করণ ছিলো- করোনার হটস্পট ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ থেকে দলে দলে মানুষ এসে সিলেটে ঢুকা। আর ঈদের সময় এবং পরবর্তী সময়ে যে ভয়াবহ রূপ নিয়েছে সিলেট,  এর মূল কারণ হচ্ছে- ঈদের আগে কোনো ধরনের স্বাস্থ্যবিধি না মেনে প্রতি মার্কেট ও দোকানে নারী-পুরুষ-শিশু সবাই মিলে ভিড় করে কেনাকাটা করা। 

তিনি বলেন, ঈদের আগেই আমরা সিলেটবাসীকে বার বার পরামর্শ এবং সতর্ক করে দিয়েছিলাম যাতে কেনাকাটা-টা সীমিত পরিসরে হয় এবং অবশ্যই অবশ্যই স্বাস্থবিধি মেনে হয়। কিন্তু কেউ এসবের তোয়াক্কা করেনি। যার ফলে সিলেটে এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে।

আরও দেখুন

করোনায় আক্রান্ত মেয়র আরিফুল হকের স্ত্রী শামা

এবার করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর স্ত্রী শামা হক চৌধুরী …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: